মাদারবোর্ড কী,মাদারবোর্ড কত প্রকারের হয়,মাদারবোর্ড এর কাজ (Motherboard Ki, Motherboard Koto Prokarer Hoy)

কম্পিউটার এর একটি অভিন্ন অঙ্গ হল মাদারবোর্ড। আমরা মাদারবোর্ড কী ? এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা মাদারবোর্ড কী ? এই প্রশ্ন ছাড়াও মাদারবোর্ড কত প্রকারের হয়, মাদারবোর্ড এর কাজ কি, মাদারবোর্ড এর বিভিন্ন অংশের নাম এই ধরণের সমস্ত প্রশ্নের সবাল জবাব তুলে ধরার চেষ্টা করব।

মাদারবোর্ড (motherboard) কে আপনারা কম্পিউটারের Central communication backbone connectivity point বলতে পারেন। কারণ মাদারবোর্ডের দ্বারাই কম্পিউটারের বিভিন্ন অংশ (components ) এবং external peripherals গুলোকে একেঅপরের সাথে সংযুক্ত রাখা হয়।

কম্পিউটার মনিটরের সাথে আপনারা একটি লম্বা উঁচু ক্যাবিনেট দেখে থাকবেন যাকে আমরা সচরাচর সিপিইউ ক্যাবিনেট বলি। এই ক্যাবিনেটের সাথে অথাৎ সিপিইউএর সাথে কম্পিউটারের বিভিন্ন components গুলোকে সংযুক্ত করার কাজ করে আসলে মাদারবোর্ড।

কম্পিউটারের মাদারবোর্ড (motherboard), কম্পিউটারের বিভিন্ন পার্টস (parts) গুলোকে একে অপরের সাথে সংযুক্ত করার প্রধান মাধ্যমের (main comunication) কাজ করে তাই মাদারবোর্ডকে কম্পিউটারের ব্যাকবোন বললে কিছু ভুল বলা হবেনা।

তবে যুগের হাওয়ায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে মাদারবোর্ডের মধ্যেও বিভিন্ন ধরণের পরিবর্তন (update) এসেছে এবং সময়ের ব্যবধানে মাদারবোর্ডের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের নতুন নতুন features add হয়েছে।

যার ফল স্বরূপ দিন প্রতিদিন যুগের বিকাশের সাথে সাথে কম্পিউটারের কার্যক্ষমতা (capabilities) বেড়েছে। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে আমাদের আসল আলোচনা মাদারবোর্ড কী (Motherboard Ki) ? সেই বিষয়ে আলোচনা করা যাক।

Table of Contents

মাদারবোর্ড কী (Motherboard Ki)

মাদারবোর্ড হল কম্পিউটারের মেরুদন্ড। মাদারবোর্ড কম্পিউটারের বিভিন্ন পার্টস গুলোকে সংযুক্ত করার এমন একটি লিঙ্কিং মাধ্যম যার দ্বারা কম্পিউটারের সমস্ত components গুলো একে অপরের সাথে সংযুক্ত হয়।

মাদারবোর্ড আমাদের বাজেট, আমাদের প্রয়োজন অনুসারে বিভিন্ন ধরণের আলাদা আলাদা formation এ পাওয়া যায়। মাদারবোর্ড হল কম্পিউটারের প্রধান PCB (Printed Circuit Board) যা

Computer এর বিভিন্ন components গুলোকে একত্রিতভাবে জুড়ে রাখে, যাতে করে কম্পিউটারের কার্যক্রম সুচারু রূপে চালু থাকে। যেমন- CPU,RAM,TV Card, Graphics Card, Hard Disk ইত্যাদি parts গুলোকে সবার আগে মাদারবোর্ডের সাথে conect করা হয়।

তারপর Power Supply Unit থেকে কম্পিউটারের বিভিন্ন parts গুলোকে power supply করা হয় যাতে করে মাদারবোর্ডের উপর স্থাপন করা কম্পিউটারের বিভিন্ন componenets গুলো তারা তাদের নিজের নিজের কাজ (function) করতে পারে।

মাদারবোর্ড কাকে বলে (Motherboard Kake Bole)

মাদারবোর্ড হল কম্পিউটারের এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ পার্টস যা কম্পিউটারের বিভিন্ন ধরণের উপকরণগুলোকে একত্রিত করে সমস্ত পার্টসের মধ্যে Communicate করার কাজ করে।

মাদারবোর্ড (Motherboard) হল কম্পিউটারের প্রধান সার্কিট বোর্ড যা কম্পিউটারের সমস্ত হার্ডওয়ার গুলোকে প্রসেসরের সঙ্গে জুড়ে যোগাযোগ স্থাপনের কাজ করে। তাই মাদারবোর্ডকেই কম্পিউটারের ব্যাকবোন বললে খুব একটা ভুল বলা হবেনা।

মাদারবোর্ড এর কাজ কি (Functions of Motherboard)

আমরা এতক্ষন মাদারবোর্ড কী ? সেই বিষয়ে আপনাদের সংক্ষিপ্ত একটা ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করলাম। এবারে আসুন আমরা Motherboard এর বিভিন্ন Componenet’s এর কাজ গুলো সমন্ধে অবগত হওয়ার চেষ্টা করি –

01. Component’s Hub

মাদারবোর্ড (Motherboard) হল কম্পিউটারের মেরুদন্ড। মাদারবোর্ডের মাধ্যমেই কম্পিউটারের বিভিন্ন হার্ডওয়ার পার্টসগুলোকে একে অপরের সঙ্গে Communicate করা হয়। যেমন- RAM, Hard Disk, CPU ইত্যাদিকে মাদারবোর্ডের উপরেই ইনস্টল করা হয়।

02. Slots for External Peripherals

মাদারবোর্ড কম্পিউটারের একটি বিশেষ প্লাটফর্ম যেখানে একগুচ্ছ Expansion Slots থাকে। এই Expansion Slots গুলোর মাধ্যমে মাদারবোর্ডে বিভিন্ন ধরনের নতুন নতুন Device এবং Interface ইনস্টল করা হয়।

03. BIOS

কম্পিউটারের মাদারবোর্ডে BIOS এর প্রয়োজন হয় কম্পিউটারকে Boot Up করার জন্যে। কম্পিউটারকে Boot Up করার জন্যে প্রয়োজন Read Only Memory (RAM), সুতরাং আপনারা বুঝতেই পারছেন কম্পিউটারের মাদারবোর্ডে বিভিন্ন Componenets গুলো একে অপরের সাথে মিলে মিশে কাজ করে।

04. Data Flow

মাদারবোর্ড কম্পিউটারের Communication Hub হিসাবে কাজ করে এবং কম্পিউটারে মাদারবোর্ডের মাধ্যমে সমস্ত Peripherals connect হয়। এখানে মাদারবোর্ডের কাজ হল কম্পিউটারের বিভিন্ন Componenets গুলোকে কন্ট্রোল করা।

মাদারবোর্ড মূলত Data Traffic ম্যানেজ করার কাজটা করে থাকে। মাদারবোর্ডের মাধ্যমেই কম্পিউটারের বিভিন্ন Components গুলো একে অপরের সাথে ঠিক-ঠাক যোগাযোগ করতে পারছে কিনা পুরো বিষয়টা পর্যবেক্ষণ করা হয়।

05. Power Distribution

সর্বশেষ যে কথাটা একেবারে না বললেই নয় Motherboard এর সাহায্যেই পাওয়ার সাপ্লাই ইউনিট থেকে কম্পিউটারের বিভিন্ন components গুলোর মধ্যে power supply এর কাজ করা হয়। তাই কম্পিউটারের পরিচালনায় মাদারবোর্ডের ভূমিকা যে প্রবল সেই কথাটা না বললেই নয়।

মাদারবোর্ডের বিভিন্ন অংশের বর্ণনা

কম্পিউটারের মধ্যে এককভাবে মাদারবোর্ডের কোনো ভূমিকা নেই, কিন্তু কম্পিউটার অপারেটিং করার জন্যে মাদারবোর্ডের মহত্ব আছে। মাদারবোর্ডের কাজ হল কম্পিউটারের মাইক্রো চিপ-কে আগলে রেখে কম্পিউটারের আরো অন্যান্য componenets গুলোকে একে অপরের সাথে সংযুক্ত করা।

যে সমস্ত উপকরণ গুলো কম্পিউটারকে যৌথভাবে চালাতে সাহায্য করে কিংবা কম্পিউটারের performance বৃদ্ধিতে সাহায্য করে, সেই সমস্ত উপকরণ গুলো একত্রিত ভাবে মাদারবোর্ডেরই অঙ্গ বা অবিচ্ছিন্ন উপকরণ বলা চলে।

কারণ মাদারবোর্ডের এই সমস্ত উপকরণ (parts) গুলো মাদারবোর্ডের সঙ্গে সরাসরি কোন slot অথবা port এর মাধ্যমে মাদারবোর্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকে। মাদারবোর্ডের আকার Shape এবং layout কে Form Factor বলা হয়।

মাদারবোর্ডের এই Form Factor এর মাধ্যমেই নির্ধারিত হয় মাদারবোর্ডের ডিজাইন কেমন হবে। সাধারণভাবে দেখতে গেলে মাদারবোর্ডের নানারকমের Specific Form Factor রয়েছে যেগুলোর ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরণের Standard Motherboard তৈরী করা যেতে পারে।

01. প্রসেসর (Processors/CPU)

প্রসেসর (Processors/CPU) হল মাদারবোর্ডের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ feature, যা সকেট দ্বারা CPU কে ধরে রাখার কাজ করে। তবে মাদার বোর্ডের ধরণের উপর নির্ভর করে মাদারবোর্ডের Processor এর Pins এবং Socket এবং Conector কেমন হবে।

মাদারবোর্ডের Socket এর মাধ্যমেই বোঝা যায় মাদারবোর্ডে কী ? এবং কেমন ধরণের Processor ফিট বসবে। মাদারবোর্ডের সকেট দেখেই বোঝা যায় তার মধ্যে কোন জেনারেশনের Processor লাগানো হয়েছে।

মাদারবোর্ড কী-
মাদারবোর্ড কী-

02. মেমোরি (Memory/RAM)

আপনি কোন ধরণের Motherboard ব্যবহার করবেন সেটা নির্ভর করে আপনার বাজেট এবং আপনার কাজের ধরণ হিসাবে, আপনি মাদারবোর্ড কী ধরণের RAM এর ব্যবহার করছেন সেটার উপর।

RAM কম্পিউটারের কার্যক্ষমতাকে বাড়ানোর জন্যে ব্যবহার করা হয়। কম্পিউটারের RAM এর উপরই নির্ভর করে আপনার কম্পিউটার কত তাড়াতাড়ি reboot হবে এবং আপনার file/data কত তাড়াতাড়ি transfer অথবা upload হবে।

সাধারণত দেখতে গেলে মাদারবোর্ডের মধ্যেও RAM লাগানোর কিছু লিমিট ফিক্স থাকে, সেই সমস্ত০। মাদারবোর্ডে নির্দিষ্ট পরিমান বাঁধাধরা amount of RAM support করবে। তবে আমার মনে হয় আপনি যখন কোনো মাদারবোর্ড কিনবেন

তখন এমন ধরণের ফেক্সিবেল মাদারবোর্ড নির্বাচন করা উচিত যেখানে RAM লাগানোর বাঁধাধরা কোনো গন্ডি থাকবেনা। আপনি আপনার পছন্দমত সময়ের তালে RAM কমানো এবং বাড়ানো মানে যাকে বলে RAM এর Upgrade করতে পারবেন।

03. ফর্ম ফ্যাক্টর (Form Factor)

মাদারবোর্ডের layout কে মাদারবোর্ডের Form Factor বলা হয়। Form Factor দেখেই বোঝা যায় কম্পিউটারের বিভিন্ন components গুলোর কোনটা কোথায় বসানো হবে এবং কম্পিউটারের নক্সা বা ডিজাইন কেমন হবে।

কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের (Motherboard) বিভিন্ন ধরণের Form Factor আছে তবে user এর চাহিদা বা প্রয়োজন অনুযায়ীই মাদারবোর্ডে Form Factor এর ব্যবহার করা হয়।

04. চিপসেট (Chipset)

Chipset কে কম্পিউটারের middle man বলা হয়। কারণ Chipset এর সাহায্যেই কম্পিউটারের ভিতরে এক parts থেকে অন্য parts এর মধ্যে data transfer হয়। Chipset কম্পিউটারে Spine এর মত, Chipset Microprocessor কে কম্পিউটারের অন্যান্য parts গুলোকে একে অপরের সাথে জুড়ে রাখে।

একটি কম্পিউটারের মধ্যে দুটো মুখ্যভাগ আছে। যেমন- ০১. NorthBridge এবং ০২. SouthBridge, কম্পিউটারের সমস্ত parts গুলো CPU এর সাথে Chipset এর মাধ্যমেই Communicate হয়।

05. বাস (BUS)

কম্পিউটারের মাদারবোর্ডে BUS হল মূলত এক ধরণের রাস্তা। মাদারবোর্ডে BUS এর কাজ হল মাদারবোর্ডের মধ্যে থাকা বিভিন্ন ধরণের Component গুলোকে একে অপরের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করা।

মাদারবোর্ডের BUS এর Speed (গতি) কে MegaHeartz (MHZ) দিয়ে পরিমাপ করা হয়। কম্পিউটারের Speed দেখেই বোঝা যায় আপনার কম্পিউটারের মানে মাদারবোর্ডের BUS এর উপর কত পরিমান Data ট্রান্সফার করা যাবে।

মাদারবোর্ডের BUS যতটা ভাল হবে আপনার কম্পিউটারে তত দ্রুত Data Transfer, Download, Upload করা যাবে। তাই কম্পিউটার কেনার সময় আমাদের অবশ্যই BUS এর speed দেখে কম্পিউটারের মাদারবোর্ড কেনা উচিত।

06. স্লট এবং কানেক্টর (Expansions Slots and Connectors)

মাদারবোর্ডে উপলব্ধ Expansion Slots হল কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের বিশেষ একটি অপশন যা মাদারবোর্ডকে কম্পিউটারের আরো বিভিন্ন additional components কে যুক্ত করার কাজ করে।

ভবিষ্যতে কম্পিউটারের মধ্যে আসা বিভিন্ন ধরণের System Upgrade করার জন্যে মাদারবোর্ডে অবশ্যই Expansions Slots ও Conectors থাকা দরকার। মাদারবোর্ডে যতবেশি Expansions slot থাকবে আপনি আপনার কম্পিউটারে তত বেশি components attach করতে পারবেন।

07. সিপিইউ ক্লক (CPU Clock)

মাদারবোর্ডের মধ্যে থাকা CPU Clock মাদারবোর্ডের বিভিন্ন কাজগুলোকে synchronize করে। CPU Clock মাদারবোর্ডের CPU এর মধ্যে সময় সংকেত বহন করার কাজ করে। যেমন- একটি 200 MegaHeartz সিপিইউ ঘড়ি থেকে পার সেকেন্ড 200 Milion বৈদ্যুতিক pulse সার্কুলেট হয়।

তাছাড়া CPU Clock এর মাধ্যমে কম্পিউটারে “Real-Time-Clock” কম্পিউটারে সময় দেখায় এবং বিভিন্ন Software এর মধ্যে Exact time maintain করে কম্পিউটারে বিভিন্ন Software এর upgrade হয়।

মাদারবোর্ড কী-
মাদারবোর্ড কী-

08. সিএমওএস ব্যাটারী (CMOS Battery)

CMOS হল RAM Chip দ্বারা তৈরী কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের বিশেষ একটি অংশ যা কম্পিউটারে পাওয়ার সাপ্লাই না থাকলেও ব্যাটারি দ্বারা কম্পিউটারে CPU দ্বারা Data কে অক্ষতভাবে ধরে রাখার কাজ করে।

কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের মধ্যে থাকা এই বিশেষ ধরণের ব্যাটারীকে CMOS Battery বলা হয়। মাদারবোর্ডের মধ্যে থাকা কম্পিউটারের এই বিশেষ ব্যাটারী কম্পিউটার পুনরায় start হলে data configration restore করে।

মাদারবোর্ড কী-
মাদারবোর্ড কী-

09. পোর্ট (Port)

কম্পিউটারের মাদারবোর্ডে প্রধানত চারটি মেন পোর্ট আছে- ০১. সিরিয়াল পোর্ট, ০২. প্যারালাল পোর্ট, ০৩. PS2 পোর্ট, ০৪. USB পোর্ট

০১. সিরিয়াল পোর্ট (Sereial Port)

এই পোর্টটি মাদারবোর্ডের Asynchronous port যা কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের সঙ্গে বিভিন্ন ধরণের সিরিয়াল ডিভাইসকে সংযুক্ত করতে সাহায্য করে। এই পোর্টের মাধ্যমে নির্দিষ্ট সময়ে ০১ বিট ডেটা ট্রান্সফার করা যায়।

তবে মাদারবোর্ডে সাধারণত দুই ধরণের সিরিয়াল পোর্ট দেখতে পাওয়া যায়- ক) Com 01. এবং খ) Com 02. তবে সচরাচর সাধারণ পোর্টের মধ্যে ০৯ থেকে ১০ সংখ্যার পিন-ই থাকে।

০২. প্যারালাল পোর্ট (Paralal Port)

Paralal Port কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের Perferal device এর মধ্যে Interface এর কাজ করে। যেমন- Printer কে কম্পিউটারের সাথে Connect করার কাজ Paralal Port দ্বারা করা হয়।

০৩. পিএস-০২ পোর্ট (PS-02 Port)

কম্পিউটারের বিখ্যাত হার্ডওয়্যার নির্মাতা IBM কোম্পানী দ্বারা মাউস এবং কীবোর্ড মাদারবোর্ডের সঙ্গে সংযুক্ত করার জন্যে PS-02 Port (Personal System 02 Series) তৈরী করা হয়।

০৪. ইউএসবি পোর্ট (USB Port)

USB এর পুরো নাম Universal Serial Bus, এই পোর্টটি হল মূলত প্লাগ এন্ড প্লে ইন্টারফেস যা কম্পিউটারকে বিভিন্ন ধরণের পেরিফেরাল ডিভাইসের সাথে কমুনিকেট করতে সাহায্য করে। তবে USB Port দ্বারা ডেটা ট্রান্সফার ছাড়াও বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজ করা যায়। যেমন- Mobile charging .

মাদারবোর্ড কোম্পানী

বাজারে বিভিন্ন ধরণের মাদারবোর্ড কোম্পানী আছে, তার মধ্যে কয়েকটি বিশ্বস্ত মাদারবোর্ড নির্মাতা কোম্পানী হল-

  • Intel (ইন্টেল)
  • AMD (এ-এমডি)
  • Gigabyte (গিগাবাইট)
  • Asus (আসুস)
  • ACCER (এসিআর) etc.

মাদারবোর্ড কত প্রকারের হয়

বাজারে মূলত আমরা ০৫ ধরণের মাদারবোর্ড দেখতে পায়। আমরা এখন মাদারবোর্ড বিভিন্ন প্রকার গুলো নিয়ে আলোচনা করব। যেমন- ০১. স্ট্যান্ডার্ড এটিএক্স মাদারবোর্ড , ০২. মাইক্রো এটিএক্স মাদারবোর্ড, ০৩. মিনি আইটিএক্স মাদারবোর্ড, ০৪. পিকো আইটিএক্স মাদারবোর্ড, ০৫. ন্যানো আইটিএক্স মাদারবোর্ড।

০১. স্ট্যান্ডার্ড এটিএক্স মাদারবোর্ড (Standard ATX Motherboard)

বাজারে যে সমস্ত মাদারবোর্ডের চাহিদা আছে তার মধ্যে আম পাবলিকের সবথেকে পছন্দের জনপ্রিয় মাদারবোর্ড হল স্ট্যান্ডার্ড এটিএক্স মাদারবোর্ড (Standard ATX Motherboard).

কারণ স্ট্যান্ডার্ড মাদারবোর্ডে আর ০৫ টা মাদারবোর্ডের তুলনায় অনেকবেশি এফিসিয়েন্সি টেকনোলজি রয়েছে যার ফলে এই মাদারবোর্ড ইউজার এক্সপেরিয়েন্সকে আর সবার থেকে আলাদা করে।

এই মাদারবোর্ডে সর্বাধিক ক্ষমতা সম্পন্ন RAM ব্যবহার করা যায়। স্ট্যান্ডার্ড এটিএক্স মাদারবোর্ডের কনফিগারেশন ৩৫” X ৩৫” হয়। সাধারণত হাই কনফিগারেশনের পিসিতে এই ধরণের স্ট্যান্ডার্ড মাদারবোর্ড ব্যবহার করা হয়।

০২. মাইক্রো এটিএক্স মাদারবোর্ড (Micro ATX Motherboard)

মাইক্রো এটিএক্স মাদারবোর্ডের সাইজ Mini ATX Motherboard এর সাইজের থেকে কিছুটা বড় কনফিগারেশনের হয়। মাইক্রো এটিএক্স মাদারবোর্ড ২৪” X ২৪” সাইজের হয়। মাইক্রো এটিএক্স মাদারবোর্ডের আকার ছোট হওয়ায় এর মধ্যে খুব বেশি স্লট দেখা যায় না, তবে প্রয়োজনে আলাদা করে স্লট লাগানো যায়।

০৩. মিনি আইটিএক্স মাদারবোর্ড (Mini ITX Motherboard)

মিনি আইটিএক্স মাদারবোর্ড আকারে ছোট তাই এই মাদারবোর্ডকে মিনি আইটিএক্স মাদারবোর্ড (Mini ITX Motherboard) বলা হয়। তবে আকারে ছোট হলেও এই মাদারবোর্ড যথেষ্ট ক্ষমতাসম্পন্ন হয়। মিনি আইটিএক্স মাদারবোর্ড ১৬ জিবি পর্যন্ত RAM সাপোর্ট করতে পারে।

তবে মিনি আইটিএক্স মাদারবোর্ড তুলনামূলকভাবে ছোট হওয়ায় এই মাদারবোর্ডে খুব বেশি পরিমানে কেবল গ্যালারী ব্যাবহার করা না গেলেও কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে ফেক্সিবল হওয়ায় এই মাদারবোর্ডে Card upgrade করা যায়। যেমন- গ্রাফিক্স কার্ড, অডিও কার্ড ইত্যাদি।

মাদারবোর্ড কী-
মাদারবোর্ড কী-

০৪. ন্যানো আইটিএক্স মাদারবোর্ড (NANO ITX Motherboard)

২০০৫ সালে ন্যানো আইটিএক্স মাদারবোর্ড প্রথমবারের জন্যে বাজারে আসে। আকারে ছোট হলেও কিন্ত ন্যানো মাদারবোর্ড খুব সরলতার সঙ্গে ব্যাবহার করা যায়। ন্যানো আইটিএক্স মাদারবোর্ডের একটি অন্যতম বৈশিষ্ট হল এই মাদারবোর্ড হল fully integrated যা -২০ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেট ~ +৭০ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেট (-০৪ ডিগ্রী ফারেনহাইট ~ ১৫৮ ডিগ্রী ফারেনহাইট) তাপমাত্রায় অপারেট করা যায়।

০৫. পিকো আইটিএক্স মাদারবোর্ড (PICO ITX Motherboard)

পিকো আইটিএক্স মাদারবোর্ডের আকার হল প্রায় ১০ সেমি X ০৭.২ সেমি। ২০০৮ সালের দিকে এই ধরণের মাদারবোর্ড মার্কেটে আসে। ভায়া টেকনোলজি নামের একটি বিদেশী সংস্থাপক ব্র্যান্ড দ্বারা পিকো আইটিএক্স মাদারবোর্ড এর প্রচার করা হয়।

FAQ

প্রশ্ন- মাদারবোর্ড কী ?

উঃ- মাদারবোর্ড হল কম্পিউটারের এমন একটি components যা কম্পিউটারের বিভিন্ন parts গুলোকে একে অপরের সাথে সংযুক্ত করার কাজ করে।

প্রশ্ন- USB এর পুরো নাম কী ?

উঃ-USB এর পুরো নাম হল Universal Serial Bus

প্রশ্ন- মাদারবোর্ডে সিপিইউ ক্লক অন রাখার ব্যাটারিরি নাম কী ?

উঃ- CMOS ব্যাটারী।

প্রশ্ন- মাদারবোর্ড কত প্রকারের হয় ?

উঃ- সাধারণত বাজারে পাঁচ প্রকারের মাদারবোর্ড পাওয়া যায়। যেমন- ০১. স্ট্যান্ডার্ড এটিএক্স মাদারবোর্ড , ০২. মাইক্রো এটিএক্স মাদারবোর্ড, ০৩. মিনি আইটিএক্স মাদারবোর্ড, ০৪. পিকো আইটিএক্স মাদারবোর্ড, ০৫. ন্যানো আইটিএক্স মাদারবোর্ড।

পরিশিষ্ট

এতক্ষন আমরা কম্পিউটার বিষয়ে আলোচনা করতে গিয়ে কম্পিউটারের একটি অপরিহার্য্য অংশ বিশেষ করে মাদারবোর্ড, মাদারবোর্ড কী ? মাদারবোর্ডের কাজ, মাদারবোর্ডের বিভিন্ন অংশ, মাদারবোর্ড কত প্রকারের হয় এই সমস্ত বিষয় গুলো নিয়ে সংক্ষেপে আলোচনা করলাম।

আশাকরি আপনারা কম্পিউটারের মাদারবোর্ড জিনিসটা কী ? মাদারবোর্ডের কাজ কি এই বিষয়ে কিছুটা হলেও ধারণা লাভ করেছেন। আমরা পরের আর্টিকেলে কম্পিউটারের আরো বিভিন্ন অঙ্গ (parts) গুলো নিয়ে আরো তথ্যপূর্ন্য লেখা আপনাদের সামনে তুলে ধরব।

সর্বশেষ মাদারবোর্ড কী ? আর্টিকেলটা পড়ে আপনাদের কেমন লাগল জানাবেন। কম্পিউটার এবং কম্পিউটার সম্বন্ধিত আরো কোনো ধরণের প্রশ্ন আপনাদের মনে থাকলে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ।

5/5 - (2 votes)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here