ব্যাংক কি,ব্যাংক কাকে বলে,ব্যাঙ্ক কত প্রকারের হয়(Bank Kake Bole,Bank Koto Prokarer)

ব্যাংক কাকে বলে ব্যাংক কি ? এই ধরণের প্রশ্ন গুলো মনে জাগতেই আমাদের চোখের পাতায় ব্যাংকের ছবি ভেসে উঠে। ব্যাংক হল এমন একটি জায়গা যেখানে লক্ষ লক্ষ টাকা আমরা এক জায়গায় একত্রিতভাবে দেখতে পায়।

কিন্তু এখানে প্রশ্ন হল ব্যাংক কি ? ব্যাংক কাকে বলে এই প্রশ্নের সাধারণভাবে উত্তর দিলে বলতে হয়, ব্যাংক হল আমাদের সঞ্চয় এবং ঋণ প্রদানের জন্যে মধ্যস্ততাকারী একটি সংস্থা।

যেখানে মানুষ তার প্রয়োজনে ঋণ নিতে পারে আবার টাকা গচ্ছিত রেখে সঞ্চয় হিসাবে রাখতে পারে। একটা সময় এমন ছিল মানুষকে টাকা জমা এবং টাকা তুলার জন্যে সরাসরি ব্যাংকে লম্বা লাইনে খাড়া হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হত।

কিন্তু এখন সময় অনেকটাই পাল্টে গেছে, এখন মানুষের হাতের মুঠোর মধ্যে ব্যাংক চলে এসেছে। মানুষকে ব্যাংকের কাজ করার জন্যে আর ব্যাংক যাওয়ার প্রয়োজন হয়না।

মানুষ এখন ঘরে বসেই ইন্টারনেট ব্যাংকিং এবং মোবাইল ব্যাংকিং,UPI, ATM এর মত আধুনিক সুবিধা গুলোর দৌলতে ব্যাংকের সমস্ত কাজ আজকাল চুটকির মধ্যেই সেড়ে ফেলতে পারে।

আজকের আর্টিকেলে আমরা এখন ব্যাংক কাকে বলে ব্যাংক কি,ব্যাংক কত প্রকারের হয়, ব্যাংক কিভাবে কাজ করে এই সমস্ত বিষয় গুলো সম্পর্কে আপনাদের সংক্ষেপে অবগত করার চেষ্টা করব।

Table of Contents

ব্যাংক কি (Bank Ki)

ব্যাংক হল এমন একটি financial institution, যে সংস্থা টাকা পয়সা লেনদেনের কাজ করে। ব্যাংকের মাধ্যমে মানুষ তার অতিরিক্ত জমা পুঁজি আমানত হিসাবে গচ্ছিত রাখে যাকে Money Deposit বলা হয়।

আবার একককভাবে ব্যাংক গচ্ছিত টাকার উপর গ্রাহকদের সুদ প্রদান করে। সুতরাং ব্যাংকে গ্রাহকের দ্বারা একত্রিত করা টাকা আদান প্রদানের অন্যতম মাধ্যম বলা যেতে পারে।

(আরো পড়ুন : মিউচুয়াল ফান্ড কি,মিউচুয়াল ফান্ড কত প্রকার)

ব্যাংক শব্দের উৎপত্তি

ব্যাংক (Bank) শব্দের উৎপত্তি ইতালিয়ান শব্দ Banca এবং ফ্রেঞ্চ শব্দ Banque থেকে। এখানে দুটি ভাষা যদিও আলাদা তবে শব্দ দুটির অর্থ কিন্তু এক। ইংরেজিতে Bench শব্দটির আক্ষরিক অর্থ হল Money Exchange Table.

Deposit Rate এবং Lending Rate আসলে কি ?

সাধারণভাবে ব্যাংকের মাধ্যমে গ্রাহকরা যখন তাদের টাকা জমা করে, ব্যাংক তার গ্রাহকদের জমা করা টাকার উপর খুব কম রেটে ইন্টারেস্ট পে করে। গ্রাহকদের এই জমা করা টাকার সুদের দরকে Deposit Rate বলা হয়।

আবার যখন কোনো ব্যক্তি ব্যাংক থেকে টাকা ধার নেয়, তখন ব্যাংক ধার দেওয়া টাকার উপর কাস্টমারদের থেকে অনেক বেশি ইন্টারেস্ট নেয়। ব্যাংক থেকে গ্রাহকদের নেওয়া এই সুদ দরকে Lending Rate বলা হয়।

Net Interest Spread আসলে কি ?

ব্যাংকের Deposit Rate এবং Lending Rate এর সুদের যে পার্থক্য তাকে Net Interest Spread বলা হয়। এই Net Interest Spread এর উপর সমস্ত ব্যাংকের মূল আয় নির্ভর করে।

ব্যাংক কাকে বলে (Bank Kake Bole)

Oxford Dictionary অনুসারে ব্যাংক হল এমন একটি টাকা পয়সা লেনদেনকারী সংস্থা (Estabalishmet), যে সংস্থার নিজেদের গ্রাহকের আবেদনের উপর টাকা লেনদেন পক্রিয়া সম্পূর্ণ করে।

অর্থনীতির ভাষায় trade,commerce এবং industry এর মূল আধারকে ব্যাংক বলা হয়। এখনকার দিনে যেকোনো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানকে সুচারুভাবে চালানোর জন্যে ব্যাংকের প্রয়োজন, তাই ব্যাংকে আধুনিক বিজনেসের মেরুদন্ড বলা চলে।

ব্যাংকিং ব্যবস্থা কি

Indian Banking Regulation Act অনুসারে জনসাধারণের ব্যাংকে জমা করা পয়সা বাজারের চাহিদা অনুসারে বিভিন্ন জায়গায় বিনিয়োগ করে মুনাফা অর্জন করার প্রক্রিয়াকে ব্যাংকিং বলা হয়।

ব্যাংক গ্রাহকদের দ্বারা জমা করা টাকা পয়সাকে একত্রিত করে এমন জায়গায় বিনিয়োগ করে, যাতে করে ব্যাংক বিনিয়োগ করা রাশির উপর মুনাফা কামিয়ে গ্রাহকদিকে তাদের জমা রাশি সুদ সহ সময়মত ফিরিয়ে দিতে পারে।

ব্যাংকের কিছু অন্যতম বৈশিষ্ট

এখন আমরা ব্যাংকের কিছু অন্যতম বৈশিষ্ট গুলো সম্পর্কে জানব-

  • একটি ব্যাংক Individual অথবা Firm অথবা Company এর হতে পারে।
  • ব্যাংক হল এক প্রকার profit এবং service oriented institution.
  • ব্যাংক এক প্রকারের Connecting link হিসাবে গ্রাহকদের কাছে দাতা ও গ্রহীতার মধ্যে মধ্যস্থতার কাজ করে।
  • ব্যাংক দ্বারা টাকা পয়সা লেনদেন পক্রিয়ার কাজ করা হয়।
  • ব্যাংকের মাধ্যমে আমজনতা তাদের টাকা গচ্ছিত রাখে।
  • ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের advance/Loans/Credit প্রদান করে থাকে।
  • ব্যাংক আমাদের টাকা জমা করা এবং টাকা তুলার সুবিধা প্রদান করে।

ব্যাংকিং ব্যবস্থায় ব্যাংকের বিভিন্ন ধরণের শ্রেণী বিন্যাস

প্রত্যেক দেশেই তাদের দেশের রীতিনীতি অনুযায়ী ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থায় বিভাজন লক্ষ করা যায়। তবে ব্যাংকের পরিচালন ব্যবস্থার উপর ভিত্তি করেই ব্যাংকের শ্রেণীবিন্যাস করা হয়।

ব্যাংকের মধ্যে যে দুটি মূল বিভাজন লক্ষ করা যায় তা হল- Scheduled এবং Non-Scheduled Bank. Scheduled ব্যাংকে আবার দুইভাগে বিভক্ত করা হয়- ০১. Commercial Bank এবং ০২. Cooperative Bank.

এখানে Scheduled Bank কে আবার দুইভাগে ভাগ করা হয় যেমন- ক) Commercial Bank এবং খ) Cooperative Bank . ক) Commercial Bank গুলোকে আবার বিভিন্নভাগে ভাগ করা হয়েছে যেমন-

Public Sector Bank, Private Sector Banks, Foreign Banks এবং Regional Rural Banks (RRB). খ) Cooperative Bank গুলোকে দুইভাগে আলাদা করা হয়েছে Urban এবং Rural.

ব্যাংকের এই সমস্ত শ্রেণীবিন্যাস ছাড়াও বর্তমানে অনলাইন UPI ওয়ালেট আইডির মত, বিভিন্ন সংস্থার Payments Bank গুলোর চাহিদা বেড়ে চলেছে।

ব্যাংক কাকে বলে
ব্যাংক কাকে বলে

ব্যাংক কত প্রকার (Types of Bank in Bangla)

ব্যাংকিং ব্যবস্থায় অনেক ধরণের ব্যাংক আছে এবং বিভিন্ন কাজ কর্মের জন্যে পৃথক পৃথক ব্যাংক তৈরী করা হয়েছে। আসুন ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থায় কত প্রকারের ব্যাঙ্ক আছে সে ব্যাপারে একটু জানা যাক।

Scheduled Banks

Reserve Bank of India Act, 1934 এর 2nd Schedule অনুসারে Scheduled Bank গুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। যে সমস্ত ব্যাংকের ০৫ লক্ষ টাকার বেশি paid-up-capital রয়েছে,

রিজার্ভ ব্যাংকের নিয়মানুসারে সেই সমস্ত ব্যাংক গুলোকে Scheduled Bank এর অন্তর্ভুক্ত করা হয়। রিজার্ভ ব্যাংক থেকে এই সমস্ত ব্যাংক গুলো bank rate ঋণ নেওয়ার জন্যে যোগ্য বলে বিবেচিত হয়।

Commercial Banks

Banking Regulation Act, 1949 এর নিয়ম অনুসারে Commercial Banks গুলোকে regulate করা হয় এবং এই সমস্ত ব্যাংক গুলির বিন্যাস মূলত বাণিজ্যিকভাবে মুনাফা অর্জনের জন্যেই করা হয়েছে।

এই সমস্ত ব্যাংক গুলোর প্রাথমিক উপক্রম হল পাবলিকের জমা করা টাকা নিজের কাছে গচ্ছিত রাখা এবং পাবলিকের চাহিদা অনুযায়ী corporate এবং goverment সেক্টরকে ঋণ দান করা।

এখানে Commercial banks গুলোকে আলাদা আলাদা ভাগ করা হয়েছে –

  • Public sector banks
  • Private sector banks
  • Foreign banks
  • Regional Rural Banks (RRB)

Public Sector Banks

এই ধরণের ব্যাংক গুলো মূলত Nationalised Banks বলা হয়। বর্তমান অর্থনীতিতে আমাদের দেশের ৭৫% এর বেশি বাণিজ্যিক ব্যাঙ্কিং প্রসেস Public Sector Bank দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।

এই সমস্ত ব্যাঙ্ক গুলোর Majority of stakes সরকার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। গ্রাহক সংখ্যার নিরিখে State Bank of India ভারতের সবথেকে বড় Public Sector Bank.

Private Sector Banks

এই ধরণের ব্যাংক গুলোতে বড় বড় গ্রাহক ও পুঁজিপতিরা বিনিয়োগ করে থাকেন। তবে আর পাঁচটা ব্যাংকের মত Private Sector Bank গুলোতেও RBI এর যাবতীয় দিশা নির্দেশ ও শর্তাবলী পালন করেই পরিচালিত হয়।

Foreign Banks

যে সমস্ত ব্যাংকের হেড কোয়াটার আমাদের দেশের বাইরে অন্য দেশে থাকে কিন্তু ব্যাংক গুলোকে ভারতের private entity দ্বারা Operate করা হয় সেই সমস্ত ব্যাঙ্ক গুলোকে Foreign Bank বলা হয়।

এই সমস্ত ব্যাংক গুলোকে তাদের নিজস্ব হেডকোয়াটার এবং private entity অপারেটর, দুই জায়গারই নিয়ম ও রীতি পালন করতে হয়। আমাদের দেশের বিভিন্ন Foreign Bank হল- Citi Bank,Standard Chartered Bank etc.

Regional Rural Banks

এই সমস্ত ব্যাংক গুলো Scheduled commercial Banks এর মতই, কিন্তু এই সমস্ত ব্যাংক গুলোর আরো কত গুলো ছোট ছোট ব্রাঞ্চ রয়েছে। এই ব্যাংক গুলো প্রধানত বড় Society থেকে টাকা একত্রিত করে

ছোট শ্রমিক ও কৃষকদের ঋণ দান করে থাকে। Regional Rural Banks গুলো regional levels এ ভারতের বিভিন্ন রাজ্যর দ্বারা Operate করা হয়। তবে এই সমস্ত ব্যাংক গুলোর নির্দিষ্ট এলাকার মধ্যেই সীমিত শাখা থাকে।

দ্বিতীয়ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ functions যেগুলো RRBs দ্বারা পরিচালন করা হয়

  • Rural এবং Semi-urban area গুলোতে ব্যাংকিং পরিসেবা প্রদান করা।
  • সরকার দ্বারা পরিচালিত যেমন MGNREGA শ্রমিকদের বেতন এবং Empolyees দের পেনশন দেওয়ার মত কাজ গুলো করা হয়।
  • Para-Banking facilities, যেমন- Debit Card,Credit Card এবং Locker এর সুবিধা প্রদান করা।

Small Finance Banks

এই ব্যাংক গুলো দেশের niche banking segment এর মধ্যে পড়ে। এই ব্যাংক গুলোর প্রধান উদ্দেশ্য হল গ্রামেগঞ্জের যে সমস্ত মানুষরা ব্যাংকিং পরিসেবা থেকে বঞ্চিত থাকে,সেই সমস্ত মানুষদের কাছে ব্যাঙ্কিং পরিষেবা গুলো পৌঁছে দেওয়া।

এই সমস্ত small finance banks গুলো সাধারণত micro industries, small এবং marginal farmers, unorganized sector entities এবং small business unit দ্বারা পরিচালিত হয়।

এই ব্যাঙ্ক গুলোকে under Section 22 Banking Regulation Act, 1949 এবং RBI Act, 1934 এবং FEMA অনুসারে সরকারিভাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

Co-operative Banks

Co-operative Bank গুলোকে কিছু বিশেষ নির্বাচিত Co-operative Bank দ্বারা পরিচালন করা হয়। RBI Cooperative Societies Act, ১৯১২ নিয়ম অনুসারে Co-operative Bank গুলো রেজিস্টার করা হয়েছে।

এই ব্যাংক গুলো entrepreneurs, small businesses, industries এবং self-employment দের urban এরিয়ায় No-profit,no-loss মৌলিক সিদ্ধান্তের উপর সেবা প্রদান করে থাকে।

Rural এরিয়ার ক্ষেত্রে এই ব্যাংক গুলো প্রধানত agriculture-based activities যেমন- কৃষিকাজ,livestock,hatcheries ইত্যাদির উপর finance পরিষেবা দিয়ে থাকে।

Payments Bank

পেমেন্ট ব্যাংক হল ব্যাঙ্কিং সেক্টরে একটি নতুন ব্যাঙ্কিং পরিষেবা। ভারতে Payments Bank গুলোকে RBI দ্বারা অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, এই সমস্ত ব্যাংক গুলো অনলাইন restricted deposit কে allow করে।

Payments Bank গুলোতে ০১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত currently limit দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও Payments Bank গুলো আরো অন্যান্য পরিষেবা হিসাবে তাদের কাস্টমারদের

ATM cards, debit cards, net-banking,mobile-banking এর মত পরিষেবা গুলো এক্সসেস করার সুবিধা প্রদান করে।

Commercial Banks

Commercial Bank হল এমন এক ধরণের Bank, যে Bank গুলো public এর কাছ থেকে টাকা গচ্ছিত করে, ব্যাংকের অন্যান্য গ্রাহকদের loan,advance ইত্যাদি দিয়ে interest উসুল করে।

এই ব্যাংক গুলো তাদের small saving স্কিম গুলোকে পাবলিকের কাছে প্রমোট করে, তবে এই সমস্ত ব্যাংকে খুব অল্প সময়ের জন্য সঞ্চয় প্ল্যানে ইনভেস্ট করে পয়সা কামানো যায়।

Exchange Banks

Exchange Bank গুলোর মৌখিক কাজ হল Foreign currencies কেনা বেচা করে মুনাফা কামানো এবং তার সাথে সাথে foreign bills of exchange accept করা।

Non-Banking Financial Company (NBFC) কি ?

RBI এর নিয়ম অনুসারে financial institution একটি Comapny হওয়ার সাথে সাথে non-banking institution, যার ব্যবসায়িক মূল নীতি হল deposit receive করার সাথে সাথে arrangement lending করা।

NBFC কে আবার কয়েকটি ভাগে ভাগ করা হয়, যেমন- Merchant Banks,Commercial Bank ও Indigenous Bank .

Banks এর Features গুলো কি কি ?

এখন আমরা Bank এর কতগুলো মুখ্য features গুলোর কথা তুলে ধরব-

1. টাকা পয়সা deal করা

ব্যাংক হল এমন একটি ফাইনান্সিয়াল সংস্থা, যারা জনসাধারণের টাকা নিয়ে টাকা পয়সার সাথে Deal করে।

2. Individual / Firm / Company

একটি ব্যাংক, একজন ব্যক্তির, অথবা একজন সংস্থার নিজস্ব নামে হতে পারে। একটি ব্যাংকিং কোম্পানির অর্থ হল সেটি এমন একটি কোম্পানি যা ব্যাঙ্কিং ব্যবসায় পেশাদারি করে।

3. Deposit Accept করা

একটি ব্যাংক জনসাধারণের থেকে deposits ফর্মে পয়সা accept করে এবং পরতবর্তী ক্ষেত্রে পাবলিক ডিমান্ড অনুসারে পাবলিকে আবার তা ফিরিয়ে দেয়।

এছাড়াও fixed deposit এর মত case গুলোতে ম্যাচুরিটি ডেট পূর্ণ হলে পাবলিককে তা পুনঃরায় ফেরত দিয়ে দেওয়া হয়। ব্যাংক এখানে কাস্টমারের diposit করা এমাউন্টের উপর সুরক্ষা প্রদান করে থাকে।

4. ব্যাংক আমাদের Loans প্রদান করে

ব্যাংক আমাদের প্রয়োজনে সময়মত লোন দিয়ে থাকে। ব্যাংক থেকে পাওয়া লোনের টাকা দিয়ে আমরা সেই টাকার সৎ ব্যবহার করতে পারি।

5. Payment এবং Withdrawal

ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের bank easy payment এবং withdrawal facility প্রদান করে। ব্যাংকের গ্রাহকেরা তাদের প্রয়োজনে Cheques দিয়ে টাকা তুলতে পারে, আবার bank drafts দিয়ে টাকা জমা করতে পারে।

6. Agency এবং Utility Services

একটি ব্যাংক তার কাস্টমারদের সামগ্রিকভাবে banking facilities প্রদান করে। banking facilities হিসাবে ব্যাংক general utility services এবং agency services গুলো প্রদান করে থাকে।

7. Profit এবং Service Orientation

ব্যাংক হল একপ্রকারের মুনাফা অর্জনকারী সংস্থা যাহা service orinted apporch হিসাবে কাজ করে।

8. ব্যাংক তার Functions দিন প্রতিদিন উন্নত করার চেষ্টা করে

ব্যাংকিং ব্যবস্থা হল এক প্রকারের evolutionary concept, যার মানে ব্যাংক সর্বদা finctions,services,activities এর মত continuous expansion এবং diversification পরিচালিত করবে।

9. Connecting Link

একটি ব্যাংক সর্বদা আমানতকারী এবং ঋণপ্রদানকারী হিসাবে পাবলিকের মধ্যে connecting link হিসাবে কাজ করে।

10. Banking Business

একটি ব্যাংকের প্রধান লক্ষ বস্তু হল banking business করা যা অন্য কোনো business এর subsidiary না হয়।

11.  Identity স্থাপন করা

একটি ব্যাংকে তার নিজস্ব নামের সাথে অঙ্গাঙ্গিভাবে সর্বদা Bank কথাটা ব্যবহার করা উচিত। যাতে করে সাধারণ মানুষের বুঝতে অসুবিধা না হয় এটি হল একটি ব্যাংক যা মানুষের মধ্যে টাকা পয়সার dealing করে।

ব্যাংক কিভাবে কাজ করে

এখন আমরা ব্যাংক কিভাবে কাজ করে অথাৎ ব্যাংকের functions নিয়ে আলাপচারিতার মধ্যে একটু দেখে নেওয়ার চেষ্টা করব।

  1. Bank এর Primary Functions (মুখ্য কাজ)
  2. Bank এর Secondary Functions (গৌণ কাজ)

ব্যাংকের মুখ্য কাজ (Primary Functions of a Bank in Bangla )

Bank এর Primary functions কে দুইভাগে ভাগ করা হয়-

1. টাকা পয়সা জমা করা (Saving/ Fixed/ Current Deposit)

যখন কোনো ব্যক্তি নিজের টাকা ব্যাংকে গিয়ে জমা করে তখন তাকে Deposits বলা হয়। ব্যাংক Deposits কে আবার কয়কেটি ভাগে ভাগ করা হয়-

  • Saving Deposit
  • Fixed Deposit
  • Current Deposit
  • Recurrent Deposit.

Deposit Schemes,Deposit type এবং Depositing এর উপর ব্যাংকের আলাদা আলাদা Deposit স্কিম গুলো নির্ভর করে। যেমন- একটি Fixed Deposit এর উপর ব্যাংক

তার Definite sum কয়েক বছরের জন্যে ফিক্স করে রাখে। ব্যাংকের ফিক্স ইন্টারেস্ট তখনই compounded করা হয় যখন Deposit term পুরো হয়ে যায়।

এইধরণের Deposit services গুলো দেওয়া প্রত্যেকটি ব্যাংকের প্রাথমিক কর্তব্যের মধ্যে পড়ে। একটি Saving Deposit এর এমাউন্টের উপর Rate of Interest খুবই কম হয়।

কিন্তু সেভিং ডিপোজিট সাধারণভাবে লিকুইড ফান্ড হয় যা কাস্টমার তাদের প্রয়োজনে যখন খুশি Withdrawl করতে পারে, এই সব ফান্ডের মধ্যে কোনো লকিং পিরিয়ড থাকেনা।

আবার Fixed Deposit হল এক প্রকারের Fixed sum যা consumer Bank কে নির্ধারিত সময়ের জন্যে দিয়ে থাকে। তবে fixed deposit , তার নির্ধারণ করা সময়ের আগে withdraw করা যায়না।

আবার যে সমস্ত গ্রাহকরা ব্যাংকে current account এ টাকা deposit করে তাদের এই deposit এর উপর ব্যাংক কোনো সুদ দেয় না। তবে কারেন্ট একাউন্টে গ্রাহক যতবার খুশি টাকা জমা খরচ করতে পারে।

2. Advance loan প্রদান করা

Advance loan দেওয়ার মাধ্যমে ব্যাংক তার গ্রাহকদের time-interest-basis উপর টাকা ধার দিয়ে থাকে। তবে advance loan দেওয়ার আগে ব্যাংক তার গ্রাহকের যাবতীয় eligiblety check করার পরই লোন প্রদান করে।

এছাড়াও ব্যাংক তার প্রাথমিক পরিষেবা হিসাবে overdraft, cash credits, loans, discounting, bill of exchange ইত্যাদি সুবিধা গুলো দিয়ে থাকে।

ব্যাংকের গৌণ কাজ (Secondary Functions of a bank in Bangla)

মৌখিক কাজ গুলো বাদ দিয়েও ব্যাংক কিছু গৌণ কাজ করে থাকে ,যেমন- ব্যাংক তার গ্রাহকদের সোনার কয়েন বিক্রি করে, জীবন বীমা, স্বাস্থ্য বীমা, মিউচুয়াল ফান্ড ইত্যাদি বিক্রি করে থাকে।

এখন আমরা ব্যাংকের কতগুলো গৌণ কাজের বিবরণ গুলোর কথা বলব –

1. Agent Work

আমরা আমাদের ব্যাংকে এজেন্টের সঙ্গে তুলনা করতে পারি। ব্যাংক তার কাস্টমারদের থেকে টাকা একত্রিত করে একটি এজেন্টের ভূমিকা নির্বাহ করে।

ব্যাংক তার কাস্টমারদের সুবিধার্তে fund transfer,Cheques book issue,periodic payments, portfolio management ইত্যাদি গৌণ কাজ হিসাবে করে থাকে।

2. সামান্য সহযোগিতা মূলক কাজ

ব্যাংক নানা ধরণের utility function প্রদান করে, যেমন- letter of credits,locker,foreign exchange,project reports ,social welfare programs ইত্যাদি প্রদান করে।

এছাড়াও ব্যাংক তার গ্রাহকদের locker facilities,safe custody facilities এবং demat accounts সার্ভিস প্ৰদান করে থাকে। Demate account খুলে গ্রাহক stock exchange,money market এ direct trading করতে পারে।

সাধারণভাবে General Utility functions কে social development functions বলা হয়ে থাকে। কিছু কিছু জায়গায় ব্যাংক তার গ্রাহকদের জন্য নানা ধরণের অফার প্রদান করে।

প্রশ্ন- ভারতের সবথেকে বড় ব্যাংক কি ?

উঃ- ভারতের সবথেকে বড় ব্যাংক হল State Bank of India .

প্রশ্ন- কোন ভারতীয় ব্যাংক সর্বপ্রথম ATM পরিষেবা চালু করেন ?

উঃ- ভারতে ICICI ব্যাংক সর্বপ্রথম ATM সেবা চালু করেন।

প্রশ্ন- ভারতের সবথেকে পুরোনো Public Sector Bank কোনটি ?

উঃ- এলাহাবাদ ব্যাঙ্ক ভারতের সবথেকে পুরোনো Public Sector Bank .

প্রশ্ন- ব্যাংকিং ব্যবস্থা প্রথম কে চালু করেন ?

উঃ- ইতালিতে ১৪৭২ সালে Banca Monte dei Paschi di Siena নামের ব্যক্তি প্রথম ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থা শুরু করেন।

প্রশ্ন- বিশ্বের প্রথম ব্যাংকের নাম কি ?

উঃ- The Bank of the United States (১৭৯১ সালের ১২ ই ডিসেম্বর)

প্রশ্ন- বিশ্বের সবথেকে পুরোনো ব্যাংকের নাম কি ?

উঃ- Banca Monte dei Paschi di Siena হল বিশ্বের সবথেকে পুরোনো ব্যাংক।

পরিশিষ্ট

আজকের আর্টিকেলে আমরা ব্যাংক কি বা ব্যাংক কাকে বলে,ব্যাংক কিভাবে কাজ করে,ব্যাংক কত প্রকার,ব্যাংক কিভাবে মুনাফা কামায় ইত্যাদি ছোট ছোট পয়েন্ট গুলোর মাধ্যমে,

ব্যাংকিং ব্যবস্থা কিভাবে পরিচালিত হয় তার একটা ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করলাম। যদিও একটি বাক্যে বা দুটো কথায় ব্যাংক কাকে বলে সম্পূর্ণ ব্যক্ত করা সম্ভব নয়।

তবুও আমার বিশ্বাস আমাদের আর্টিকেলটি পড়ে অন্তত ব্যাংক কাকে বলে বা ব্যাংক কি এই নিয়ে একটি প্রাথমিক ধারণা আপনাদের মধ্যে জমে গেছে। ধন্যবাদ।

5/5 - (2 votes)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here