পাটনা খান স্যার জীবনী বাংলা (Patna Khan Sir,wikipedia,Bio,age,Family,wife,Bangla)

বিখ্যাত ইউটিউবার এবং শিক্ষক পাটনা খান স্যারের নাম শুনেননি এমন মানুষ কিন্ত নেহাতই হাতে গোনা।  আর যারা খান স্যারকে চেনেন,

তাদের মনে পাটনা খান স্যার জীবনী নিয়ে জিজ্ঞাসা থাকাটা একটু স্বাভাবিক। ভারতের বিহার রাজ্যের পাটনা শহরের মুসল্লাপুরে খান জিএস রিসার্চ সেন্টার নামে খান স্যারের একটা কোচিং সেন্টার আছে।

পাটনা খান স্যারের সহজ সরল দেশী হিন্দি ও ভোজপুরি ভাষায় ছাত্র পড়ানোর অভাবনীয় কৌশলের ইউ টিউব ভিডিও ছোট বড় সকল শ্রেণীর মানুষের মন জুড়িয়েছে।

খান জিএস রিসার্চ সেন্টার কোচিং থেকে পাটনা খান স্যার ততটা প্রসিদ্ধি না পেলেও,খান স্যারের ইউ টিউব চ্যানেল খান জিএস রিসার্চ সেন্টার, আজ খান স্যারকে খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে দিয়েছে।

তাইতো খান স্যারের ভিডিও খান জিএস রিসার্চ সেন্টার ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড হতে না হতেই সোশ্যাল মিডিয়ার মিলিয়ন এর উপরে ভিউ হয়ে যায়।

আমাদের দেশের যে সমস্ত জিএস কোচিং সেন্টার আছে তার মধ্যে পাটনা খান স্যারের জিএস রিসার্চ কোচিং সেন্টার হল ভারতের অন্যতম জিএস কোচিং সেন্টার।

শিক্ষক হিসাবে খান স্যারের আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তার জন্যই আজকে খান স্যারকে দেশের নামি দামী কোচিং সেন্টারগুলো থেকে কোটি টাকা অফার করা হয় তাদের ইনস্টিটিউটে পড়ানোর জন্য।

কিন্তু পাটনা খান স্যার হল অন্য ধরণের মানুষ,তার আদর্শ হল গরীব দুঃস্থ ছাত্রদের মধ্যে কম পয়সার বিনিময়ে শিক্ষার আলো সবার কাছে পৌঁছে দেওয়া।

তিনি মোটা অঙ্কের টাকার বান্ডিল ফিরিয়ে দিয়ে নিজের ব্যক্তিস্বত্তাকে না ভুলে খান স্যার পাটনা জিএস রিসার্চ সেন্টার লক্ষ লক্ষ ছাত্রদের মন ও মস্তিষ্কে শিক্ষার আলো জুগিয়ে চলেছে।

খান স্যার পাটনা খান জিএস রিসার্চ কোচিং সেন্টার এবং খান জিএস রিসার্চ সেন্টার অফিসিয়াল এপ্লিকেশনের ও ইউটিউব চ্যানেলের দৌলতে দেশ ও বিদেশের প্রায় ৭০ লক্ষ মানুষ আজ খান স্যারের ভিডিও দেখেন।

খান স্যার পাটনার প্রারম্ভিক জীবন ( Patna Khan Sir early life)


ভারতের উত্তর প্রদেশের গোরখপুরে পাটনা খান স্যারের জন্ম হয়। খান স্যারের মায়ের বাপের বাড়ি পাটনাতে হওয়ায় খান স্যার পাটনা আসতে ভালোবাসতেন।

পাটনাতে থাকতে থাকতে খান স্যার পাটনা শহরটাকে ভালোবেসে পাকাপাকিভাবে পাটনাতে বসবাস করা শুরু করেন। আজকে তিনি পাটনা শহরের অন্যতম নামি

কোচিং সেন্টার খান জিএস রিসার্চ সেন্টার কোচিং সেন্টারটি চালান। খান স্যার তার প্রারম্ভিক শিক্ষা গোরখপুরের স্থানীয় স্কুল থেকে নেন। খান স্যার ছাত্র হিসাবে একজন মেধাবী ছাত্র ছিলেন।

নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় তিনি আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশিকা পরীক্ষার প্রস্তুতি নেন এবং দশম শ্রেণী পাস্ করার পর পলিটেকনিক নিয়ে পড়ার জন্য মনস্থির করেন।

খান স্যার যখন দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র ছিলেন তখন তিনি AIEEE পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নেন কিন্তু পরীক্ষার আগের রাতে অনেক রাত জেগে পড়ার জন্য,

পাটনা খান স্যার জীবনী
পাটনা খান স্যার জীবনী

তিনি আর পরের দিন সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠতে পারেননি এবং ফলস্বরূপ সময়মত ঘুম থেকে না উঠায় তিনি AIEEE পরীক্ষা দেওয়া থেকে বাদ পড়ে যান।

খান স্যার ছোট থেকেই ইন্ডিয়ান আর্মিকে ভালোবাসতেন,তার স্বপ্ন ছিল সেনা বাহিনীতে যোগদান করার। কিন্তু কথায় আছে মানুষ যা চায় তা সবসময় হয়ে ওঠে না।

খান স্যার NDA পরীক্ষায় পাস করলেও শেষ পর্যন্ত তিনি ইন্ডিয়ান আর্মির শারীরিক দক্ষতার পরীক্ষায় সফল হয়ে ওঠতে পারেননি,তাই তার ইন্ডিয়ান আর্মিতে ভর্তি হওয়ার স্বপ্ন অসম্পূর্ন থেকে যায়।

খান স্যারের পিতা খান স্যারকে শিখিয়েছিলেন শুধু বর্ডারে কাঁধে বন্দুক নিয়েই দেশ সেবা করা যায়না। মনের মধ্যে দেশ ভক্তি ও সেবা ভাবনা থাকলে

দেশের ভিতরে থেকে মানুষের সেবা করে দেশ সেবায় ব্রতী হওয়া যায়। খান স্যার তার বাবার বলা এই কথাটা ভুলে যাননি। খান স্যার ছোট থেকেই একজন মেধাবী ছাত্র ছিলেন

তিনি তার শিক্ষালব্ধ জ্ঞানের পরিধী নিজের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সর্বদা সবার মধ্যে বিলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। এরপরই তিনি নিঃশুল্ক শিক্ষা সবার মধ্যে পৌঁছে দেওয়ার জন্য অঙ্গীকার নেন।

শুরুর দিকে তিনি হাতে গোনা গুটিকয়েক ছাত্র নিয়ে তার কোচিং সেন্টার শুরু করেন। কিন্তু তার ছাত্র সুলভ ছেলে পড়ানোর কৌশল ধীরে ধীরে তার কোচিং সেন্টারকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছে দেয়।

এখন খান স্যারের কোচিং সেন্টারে প্রতি ব্যাচে একসাথে প্রায় ০৪ থেকে ০৫ হাজার ছাত্র ছাত্রী পড়ান। এছাড়াও  এমন অনেক ছাত্র ও ছাত্রী আছেন

যারা খান স্যারের ক্লাসে জায়গা না পাওয়ায় ঘণ্টার পর ঘন্টা বাইরে দাঁড়িয়ে খান স্যারের ক্লাসের লেকচার  শোনেন। খান স্যার মধ্যবিত্ত ছাত্র ও ছাত্রীদের সমস্যার কথা মাথায় রেখে,

একসাথে অনেক ছাত্র ও ছাত্রী সুলভমূল্যে খান স্যারের ক্লাসে পড়ার সুযোগ পায় তার জন্য তিনি অনলাইন ক্লাস এবং ইউটিউব চ্যানেলে পড়ানোর পক্রিয়া শুরু করেন।

আরো পড়ুন : বাংলা ইউটিউবার বঙ্গাই কিরণ দত্তের জীবনী। 

পাটনা খান স্যার জীবনী (Patna Khan Sir Wikipedia,Bio,Age,Height,Age,Family,wife)


আসুন একনজরে পাটনা খান স্যার জীবনী wiki,Bio,Age,Height,Family,Wife,Income এর দিকে নজর দেওয়া যাক।

আসল নাম এখন পর্যন্ত জানা যায় নি।
ডাক নাম খান স্যার, খান স্যার পাটনা।
পেশা শিক্ষক এবং ইউ টিউবার।
সখ বই পড়তে ভালোবাসেন।
জন্ম সাল ১৯৮৬
জন্মস্থান গোরখপুর,উত্তর প্রদেশ (ভারত)
বর্তমান ঠিকানা পাটনা,বিহার,ভারত
নাগরীক ভারতীয়
ধর্ম মুসলমান।
বাৎসরিক ইনকাম (Net worth) ৫০ লক্ষ টাকা।
শারীরিক উচ্চতা ১৬৫ সেমি।
ওজন ৬৭ কেজি
চোখের রং কালো
চুলের রং কালো
বাবা প্রাক্তন ভারতীয় সেনা অফিসার
মা সাধারণ গৃহকর্তী
বোন/দিদি কোনো বোন/ দিদি নেই
দাদা/ভাই একজন বড় দাদা আছেন।
বৈবাহিক স্থিতি এনগেজমেন্ট হয়ে গেছে
গার্লফ্রেন্ড কোনো গার্লফ্রেন্ড নেই।
স্কুল স্থানীয় বিদ্যালয় গোরখপুর
বিশ্ববিদ্যালয় এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষাগত যোগ্যতা B.sc,M.sc

 

পাটনা খান স্যার এর পরিবার (Patna Khan Sir Family,Education & Background)


পাটনা খান স্যার এর নাম নিয়ে সংশয় আছে,কারণ খান স্যার নিজে কখনো তার নাম নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। তবে তার ফজল খান এবং অমিত সিং নাম দুটো ঘিরে অনেক বিবাদ আছে।

পাটনা খান স্যার ১৯৮২ সালে গোরখপুরে জন্মগ্রহণ করেন এবং সেখানেই তার স্কুল শিক্ষা সম্পন্ন হয়। খান স্যারের পিতা হলেন একজন প্রাক্তন সেনা অফিসার এবং তার মা একজন সাধারণ গৃহকর্ত্রী।

খান স্যারের কোনো দিদি বা বোন নেই তবে একজন বড় দাদা আছেন, তিনি বর্তমানে ভারতীয় সেনার একজন বিশিষ্ট কমান্ড হিসাবে তার জীবিকা নির্বাহ করছেন।

খান স্যার এর কোনো গার্লফ্রেন্ড নেই তবে ২০২০ সালে খান স্যারের বিয়ের এনগেজমেন্ট হয়ে গেছে কিন্তু করোনা মহামারীর জন্য বিবাহ সম্পূর্ণ হয়নি।

আরো পড়ুন : অজিত দোভাল জীবনী। 

খান স্যারের খান জিএস রিসার্চ সেন্টার পাটনা কোচিং সেন্টারের প্রারম্ভিক জীবন (Khan Sir Patna Career Journey)


শুরুর দিনে খান স্যার যখন গোরখ পুর থেকে এসে পাটনায় তার কোচিং ক্যারিয়ার শুরু করেন তখন খান স্যারকে অনেক লাঞ্ছনার স্বীকার হতে হয়েছে।

কোচিং সেন্টারের ঘর ভাড়া নেওয়ার জন্য অনেক কাট-খড় পোড়াতে হয়েছে। তাকে ঘর ভাড়া নেওয়ার জন্য হন্য হয়ে পাটনায় দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াতে হয়েছে।

কিন্তু তিনি একজন মুসলিম শিক্ষক বলে তাকে কেউ সহজে ঘর ভাড়া দিতে চায়নি। তবে তার ব্যক্তি সুলভ  আচরণ ও তার আদর্শ তাকে একজন মহান শিক্ষকের গরিমা এনে দিয়েছে।

খান স্যার পাটনা জিএস রিসার্চ সেন্টার ছাত্র ও মানুষের ভালোবাসায় স্বমহিমায় দাঁড়িয়ে আছে। তবে খান স্যার  জনপ্রিয়তা শুধু আজ তার কোচিংয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে খান নামের একটি ব্র্যান্ড তৈরী হয়ে গেছে। ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে খান স্যার,খান জিএস রিসার্চসেন্টার নামে একটি ইউ টিউব চ্যানেল খোলেন।

খান স্যারের এই ইউটিউব চ্যানেল খান স্যারকে এক ঝটকায় পাটনা থেকে সারা ভারতবর্ষের গন্ডি পেড়িয়ে বিদেশে ছড়িয়ে গেছে।

এখন পর্যন্ত ইউ টিউবে এডুকেশন রিলেটেড যত ধরণের এডুকেশনাল চ্যানেল আছে তার মধ্যে খান স্যারের খান জিএস রিসার্চ সেন্টার ইউটিউব চ্যানেলটি

সবথেকে কম সময়ে জনগণের মধ্যে অধিক জনপ্রিয় হওয়া একটি ইউটিউব চ্যানেল। খান স্যারের এই চ্যানেলটি প্রথম তিন মাসের মধ্যেই ১০ লক্ষ সাবস্ক্রাইবার পূরণ করে নেয়।

আপনাদের সবার ভালোবাসায় আজকে খান স্যারের ইউ টিউব চ্যানেল ১১.০৫ মিলিয়ন সাবস্ক্রাইবার পূরণ করে নিয়েছে। খান স্যারের এই চ্যানেলে মূলত বিভিন্ন ধরণের

সরকারি চাকুরীর প্রতিযোগিতামূলক শিক্ষণীয় পরীক্ষার জন্য কোচিং ভিডিও পোস্ট করা হয়। তাই আজকালকার দিনে  প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা প্রস্তুতির যে সমস্ত কোচিং সেন্টার আছে,

তার মধ্যে পাটনা খান স্যারের কোচিং সেন্টারকে বেস্ট কোচিং সেন্টার হিসাবে গণ্য করা হয়। খান স্যারের  জেনারেল নলেজ,সাধারণ জ্ঞান ইত্যাদি ধরণের ভিডিও বানিয়ে থাকেন।

আজকে খান স্যারের জনপ্রিয়তা শুধু পাটনা ও বিহারের মধ্যে নয় পুরো ভারতবর্ষে পৌঁছে গেছে। খান স্যার তার ছাত্রদের কাছে একজন আদর্শ শিক্ষক।

খান স্যারের পড়ানোর একটা বিশেষ বিশেষত্ব আছে। খান স্যার কঠিন থেকে কঠিন প্রশ্নের উত্তর এতো সহজ করে তুলে ধরেন যে তা একজন সাধারণ ছাত্রের কাছেও পড়ার বিষয় অনেক সহজ হয়ে যায়।

খান স্যারের ছাত্র পড়ানোর অভাবনীয় কৌশলের ভিডিও আপনারাও ইউটিউবে দেখে থাকবেন। খান স্যারের পড়ানোর বিশেষ বাচনভঙ্গি সহজেই যেকোন মানুষের মন আকর্ষণ করে।

খান স্যার কঠিন থেকে কঠিনতম বিষয়গুলোকে অতি সহজভাবে তার একটি সাধারণ ভিডিওর মধ্যে দিয়ে সহজভাবে ফুটিয়ে তোলেন।

তিনি তার ভিডিও গুলোতে হিন্দি ও ভোজপুরি ভাষার সংমিশ্রণে অত্যন্ত জ্ঞানমূলক বিষয়গুলো সাধারণ মানুষের বোধগম্য ভাবে ফুটিয়ে তোলেন।

খান স্যার মনে করেন শুধু মাত্র মানুষের ভাষা একটি মানুষের কাছে তার জ্ঞানের পরিধীর মানদন্ড হতে পারেনা। শিক্ষক যে ভাষাতেই শিক্ষাদান করুক না কেন শিক্ষক শিক্ষকই থাকেন।

আরো পড়ুন : সন্দীপ মহেশ্বরীর জীবনী। 

করোনা মহামারীতে খান জিএস রিসার্চ সেন্টার পাটনার কিছু উল্লেখনীয় কাজ


করোনা মহামারীকালে খান স্যার এবং তার কোচিং ইউসটিটিউট খান জিএস রিসার্চ সেন্টার করোনা মহামারী সমন্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে,

বহু সচেতনতা মূলক ভিডিও পোস্ট করে করোনা মহামারীকে ঘিরে মানুষের মধ্যে জন সচেতনতা তৈরী করেছে । বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের মানুষদের মধ্যে করোনা ভাক্সিনকে নিয়ে মানুষের যে ভুল ধারণা,

সেই সমস্ত ভুল ধারণাগুলোকে ভেঙে দিয়ে মানুষকে তিনি করোনা ভ্যাক্সিন নেওয়ার জন্য আগ্রহী করে তুলেছেন।

তিনি ভারতের তৈরী কোভাক্সিন এবং কোভিশিল্ড কিভাবে মানুষের শরীরে করোনা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরী করে তিনি তার ভিডিওগুলোতে খুব সুন্দর ভাবে মানুষকে বুঝিয়েছেন।

খান স্যার একজন স্বেচ্ছা সেবক তার একটি অনাথালয় আছে। সেখানে তিনি গরীব দুঃস্থ পথ শিশুদের থাকা,খাওয়া এবং পড়াশোনার সুব্যবস্থা করে দিয়েছেন।

খান স্যার তার কোচিং এবং ইউটিউব চ্যানেল থেকে যা রোজগার করেন তার বেশিরভাগ পরিমান অর্থ খান স্যারের অনাথালয়ের খরচ চালানোর জন্য চলে যায়।

খান স্যার ভিডিও (Khan Sir Video)


খান স্যারের জীবনের কিছু গুরুত্বপূর্ন্য তথ্য (Khan Sir Unknown fact)


  • পাটনা খান স্যারকে ভারতের নামি দামি কোচিং সেন্টারে পড়ানোর জন্য বিপুল অঙ্কের টাকার প্রস্তাব দেওয়া হয়,কিন্তু খান স্যার গরিব ছাত্ররা যাতে অনেক কম পয়সায় উপযুক্ত শিক্ষা পায় তার জন্য তিনি সেই প্রস্তাব প্রত্যাখান করেন।
  • খানে স্যারের খান জিএস রিসার্চ সেন্টার এমন একটি এডুকেশনাল চ্যানেল যে চ্যানেলের ভিডিও শুধু ছাত্ররা দেখেন না ছাত্র ছাড়াও সমস্ত বয়সের মানুষ খান স্যারের ভিডিও দেখেন।
  • খান স্যারের ভিডিও দেখে দেশের বিভিন্ন IS আধিকারিকরা টুইট করে জানিয়েছেন,তাদের সময়ে যদি খান স্যারের মত প্রতিভাবান শিক্ষক থাকত তাহলে তারা অনায়সে IS পরীক্ষায় প্রথম হতে পারতেন।
  • কলেজ জীবনে এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় খান স্যার ছাত্র রাজীনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তখন তাকে ছাত্র রাজনীতির দ্বন্দে অনেকবার খান স্যারকে জেল যেতে হয়েছে।
  • তিনি যখন পাটনায় তার খান জিএস রিসার্চ সেন্টার কোচিংটি স্থাপন করেছিলেন শুরুর দিকে খান স্যারের কোচিং সেন্টারে বোমা মেরে কোচিং সেন্টার বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছিল।
  • খান স্যার এবং তার কোচিং সেন্টারের ছাত্ররা অনেক গরিব দুঃস্থ মানুষদের প্রয়োজনে রক্ত দান করে মানবতাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন।

পরিশিষ্ট


পাটনা খান স্যারের অভাবনীয় শিক্ষন দক্ষতা যে লাজবাব এই নিয়ে কোনো সংশয় নেই। ছোট বড় সকল বয়স ও ধর্মের মানুষেরা খান স্যারের ভিডিও দেখতে ভালোবাসেন।

পাটনা খান স্যার জীবনী নিয়ে খুব একটা বেশি লেখা হয়নি। এখন পর্যন্ত Patna Khan Sir Wikipedia র কোনো পেজ তৈরী হয়নি।

তবে Khan Sir কে নিয়ে যেটুকু জানা যায় তার যতটা জানানো সম্ভব আপনাদের জন্য পাটনা খান স্যার জীবনীতে আজকে তুলে ধরার চেষ্টা করলাম।